পরিবর্তনের ক্ষমতায়ন:স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিবন্ধীতা অন্তর্ভুক্তির নীতিনির্ধার

টেকভিশন২৪ ডেস্ক : ঢাকা সার্ট বাংলাদেশ নেটওয়ার্ক (এসবিএন) ইক্যুয়াল বাংলাদেশ ক্যাম্পেইন, সাইটসেভারস, এটুআই, আইডিয়া ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরাম এবং ইন্টারকন্টিনেন্টাল ঢাকা-এর সাথে যৌথভাবে “পরিবর্তনের ক্ষমতায়ন: স্মার্ট বাংলাদেশে প্রতিবন্ধীতা অন্তর্ভুক্তির জন্য ককাসের ভূমিকা” শীর্ষক একটি গুরুত্বপূর্ণ নীতিনির্ধারণী সভা আয়োজন করে। ইন্টারকন্টিনেন্টাল ঢাকা-এর ক্রিস্টাল বলরুমে অনুষ্ঠিত এই ইভেন্টে, ২০৪১ সালের মধ্যে জাতীয় স্মার্ট বাংলাদেশ এজেন্ডায় প্রতিবন্ধীতা অন্তর্ভুক্তির বিষয়ে আলোচনা করার জন্য প্রধান অংশীদাররা একত্রিত হন।
“পরিবর্তনের ক্ষমতায়ন: স্মার্ট বাংলাদেশে প্রতিবন্ধীতা অন্তর্ভুক্তির জন্য ককাসের ভূমিকা” নীতিনির্ধারণী সভা একটি গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্ট ছিল, কারণ এটি দেশের উচ্চাভিলাষী ২০৪১ ভিশনের জন্য অন্তর্ভুক্তির প্রয়োজনীয়তা নিয়ে আলোচনা করেছিল। বাংলাদেশ স্মার্ট জাতিতে রূপান্তরিত হওয়ার সাথে সাথে, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের পেছনে না ফেলে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল। এই ইভেন্টটি বিভিন্ন খাতের অংশীদারদের জন্য জাতীয় নীতিমালা এবং উন্নয়ন পরিকল্পনায় প্রতিবন্ধীতা অন্তর্ভুক্তি একীভূত করার বিষয়ে আলোচনা এবং কৌশল নির্ধারণের একটি গুরুত্বপূর্ণ প্ল্যাটফর্ম প্রদান করে।
ইভেন্টটিতে ২০০ জন অংশগ্রহণকারী উপস্থিত ছিলেন, যার মধ্যে রাজনীতিবিদ, সরকারি কর্মকর্তা, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সংগঠন (ওপিডি), বেসরকারি সংস্থা (এনজিও), আন্তর্জাতিক বেসরকারি সংস্থা (আইএনজিও), এবং সাংবাদিকরা অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। ইভেন্টটির প্রধান অতিথি ছিলেন মো. আবুল কালাম আজাদ, এমপি। বিশেষ অতিথিদের মধ্যে ছিলেন বাংলাদেশ সংসদের সিনিয়র সচিব কে.এম. আব্দুস সালাম; তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব মো. শামসুল আরেফিন, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোকাম্মেল হোসেন; এবং সাইটসেভারসের কান্ট্রি ডিরেক্টর অমৃতা রেজিনা রোজারিও। ইভেন্টটির সভাপতিত্ব করেন এটুআই এর যুগ্ম প্রকল্প পরিচালক (যুগ্ম সচিব) মোল্লা মিজানুর রহমান।
নীতি সংলাপের পর তথ্যপূর্ণ উপস্থাপনা এবং আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। সেশনের মডারেটর ছিলেন জনাব মানিক মাহমুদ, প্রোগ্রাম
স্পেশালিস্ট ইনোভেশন এটুআই এবং স্মার্ট বাংলাদেশ নেটওয়ার্কের নির্বাহী সদস্য। আলোচ্যসূচিতে প্রতিবন্ধীতা উদ্ভাবন সম্পর্কিত
চ্যালেঞ্জ, অর্জন এবং স্মার্ট বাংলাদেশকে অন্তর্ভুক্তিমূলক করার সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা অন্তর্ভুক্ত ছিল।
সাইটসেভার্স বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর, মিস অমৃতা রেজিনা রোজারিও তার বক্তব্যে বলেন, “একটি স্মার্ট বাংলাদেশের অর্জনে আমাদের অবশ্যই এই ককাসকে পুনরুজ্জীবিত করতে হবে এবং এর ক্ষমতায়ন করতে হবে। সংসদ সদস্যরা প্রতিবন্ধীতা বিষয়ক ককাস খাতের বিদ্যমান চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা এবং ভবিষ্যতের প্রয়োজনীয়তা পূরণে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি সাধন করতে পারে।” তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব মো. শামসুল আরেফিন সরকারের প্রতিশ্রুতির কথা তুলে ধরে বলেন, “আমাদের জাতীয় এজেন্ডায় প্রতিবন্ধীতা অন্তর্ভুক্তি একীভূত করা শুধু একটি প্রয়োজন নয় বরং একটি নৈতিক দায়িত্ব। আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ যে সার্ট বাংলাদেশ সবার জন্যই অ্যাক্সেসযোগ্য হবে।”
প্রধান অতিথি মো. আবুল কালাম আজাদ, এমপি, একটি শক্তিশালী সমাপনী বক্তৃতা প্রদান করেন, যেখানে তিনি সরকারের ভিশন পুনর্ব্যক্ত করেন। ২০৪১ সালের মধ্যে, আমরা একটি বাংলাদেশ কল্পনা করছি যেখানে প্রতিটি নাগরিক, তাদের সক্ষমতা নির্বিশেষে, জাতির অগ্রগতি থেকে উপকৃত হতে এবং এতে অবদান রাখতে পারবে। আজকের সংলাপটি সেই লক্ষ্য অর্জনের পথে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ।”
বাংলাদেশ সংসদের সিনিয়র সচিব কে.এম. আব্দুস সালাম মন্তব্য করেন, “এই সংলাপটি আমাদের অন্তর্ভুক্তিমূলক সমাজ গঠনের প্রতিশ্রুতির প্রমাণ। আমাদের নীতিগুলি অবশ্যই আমাদের সকল নাগরিকের বৈচিত্র্য এবং শক্তিগুলিকে প্রতিফলিত করতে হবে।” বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোকাম্মেল হোসেন যোগ করেন, “অ্যাক্সেসযোগ্যতা ক্ষমতায়নের মূল চাবিকাঠি। আমরা ব্যক্তিদের জন্য সমস্ত জনসেবা, সহ বিমান চলাচল, সম্পূর্ণ অ্যাক্সেসযোগ্য করার জন্য কাজ করছি।” এটুআই এর যুগ্ম প্রকল্প পরিচালক মোল্লা মিজানুর রহমান বলেন, ‘নীতি এবং প্রয়োগে উদ্ভাবন অন্তর্ভুক্তি এজেন্ডা চালাতে অপরিহার্য। আজকের আলোচনাগুলি আমাদের ভবিষ্যতের উদ্যোগগুলিকে নির্দেশনা দিতে মূল্যবান অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করবে।”
সংলাপটি একটি অ্যাক্সেসযোগ্য এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক স্মার্ট বাংলাদেশ তৈরির চ্যালেঞ্জ এবং সুযোগগুলি চিহ্নিত করার লক্ষ্য নিয়ে ছিল, এর মাধ্যমে সমস্ত নাগরিকের জন্য সমান সুযোগ এবং ক্ষমতায়নের প্রতিশ্রুতি পুনরায় নিশ্চিত করা। এই ইভেন্টের অন্তর্দৃষ্টি এবংসহযোগিতামূলক প্রচেষ্টাগুলি টেকসই এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন চালানোর জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল, যাতে প্রযুক্তিগত অগ্রগতি এবং সামাজিক অগ্রগতি সকলের জন্য উপকার বয়ে আনে। নীতি সংলাপটি একটি ককাস প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনীয়তার উপর একটি সম্মতি দিয়ে সমাপ্ত হয়, যা প্রতিবন্ধীতা অন্তর্ভুক্তি এজেন্ডাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য ধারাবাহিকভাবে জড়িত থাকবে এবং স্মার্ট বাংলাদেশকে অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং অ্যাক্সেসযোগ্যতার একটি মডেল হিসাবে গড়ে তুলবে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন