ফিলিস্তিনের প্রযুক্তি খাতে অচলাবস্থা

ফিলিস্তিনের প্রযুক্তি খাতে অচলাবস্থা

ইসরায়েলের হামলায় ফিলিস্তিনের ক্রমবর্ধমান প্রযুক্তি খাতে দেখা দিয়েছে বিপর্যয়। যুদ্ধ শুরুর আগ পর্যন্ত ফিলিস্তিনের প্রযুক্তি খাতে বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল এক বিলিয়ন ডলার। গাজায় অবস্থিত মানারা স্টার্টআপের প্রধান নির্বাহী ও সহপ্রতিষ্ঠাতা ইলিয়ানা মন্টেক বলেন, ‘গাজার প্রযুক্তি খাত ধসে গেছে। বেশির ভাগ মানুষ জীবন বাঁচাতে ব্যস্ত, কাজ করার পরিস্থিতি নেই।

ফোনে শুধু টুজি নেটওয়ার্ক চলছে। তা-ও কখনো কখনো পাওয়া যাচ্ছে। হোয়াটসঅ্যাপে মেসেজ ছাড়া কিছু পাঠানো যাচ্ছে না।’ তাঁর প্রতিষ্ঠানের ১০০ জন সফটওয়্যার ডেভেলপার সিলিকন ভ্যালি ও ইউরোপভিত্তিক আইটি ফার্মে কাজ করতেন।

ফিলিস্তিনের সবচেয়ে বড় ডিজিটাল হাব ছিল গাজা স্কাই গিকস বা জিএসজি। এই কোডিং একাডেমি ও স্টার্টআপ অ্যাকসেলারেটর প্রগ্রাম থেকে তৈরি হয়েছে পাঁচ হাজার প্রগ্রামার ও ডেভেলপার। যে মার্সি করপোরেশনের ভবনে জিএসজির অফিস ছিল সেখানে ফেলা হয়েছে বোমা। কোনো রকমে শুধু ভবনের অবকাঠামোটা দাঁড়িয়ে আছে।

জিএসজির সাবেক পরিচালক মার্কিন নাগরিক রায়ান স্টারগিল বলেন, ‘অফিস, ফাইবার লাইন, ইউনিভার্সিটি—সব ধ্বংস করা হয়েছে। গাজার প্রধান তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়, যেখান থেকে কম্পিউটার সায়েন্সের স্নাতকরা পাস করতেন, সেগুলোও গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।    

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন