সোস্যাল মিডিয়া জোয়ার-আমরা কি ভাসছি, না ডুবছি?

32

টেকভিশন ডেস্ক: বর্তমান ডিজিটাল যুগে বিশ্বব্যাপী সোস্যাল মিডিয়ার ব্যবহার এমনতর বৃদ্ধি পাচ্ছে, কারো কারো কাছে যেন তা দৈনিক রুটিন ওয়ার্কে পরিণত হয়েছে। বয়স-নির্বেশেষে সকল জনগোষ্ঠি সোস্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারী হলেও যুব-সমাজের কাছে তা যেন জীবনের অপরিহার্য অনুষংগে পরিণত হয়েছে।

সোস্যাল মিডিয়ার জোয়ারে বিশ্ব আজ কেমন করে ভাসছে তা বিভিন্ন পরিসংখ্যান থেকে প্রতিফলিত হয়। Digital 2020, July Global Statshot Report অনুযায়ী বিশ্বের মোট জনসংখ্যার ৫৯% (৪.৫৭ বিলিয়ন) ইন্টারনেট এবং ৫১%( ৩.৯৬ বিলিয়ন) সোস্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারী রয়েছে। সোস্যাল মিডিয়াসমূহের মধ্যে ২৬০৩ মিলিয়ন ব্যবহারকারী নিয়ে ফেস-বুক প্রথম, ২০০০ মিলিয়ন ব্যবহারকারী নিয়ে ইউ-টিউব এবং হোয়াটস-আপ সম্মিলিতভাবে দ্বিতীয় এবং ১৩০০ মিলিয়ন ব্যবহারকারী নিয়ে ফেস-বুক মেসেঞ্জার তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। ইন্টারনেট বা সোস্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীদের মধ্যে মোবাইল ব্যবহারকারীদের সুষ্পষ্ট প্রাধান্য রয়েছে, সোস্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীদের ৯৯% মোবাইল নির্ভর ইন্টারনেট ব্যবহারকারী। একই সূত্রে আরো জানা যায়, বয়স-ভিত্তিক গ্রুপের মধ্যে ১৬-২৪ বছরের জনগোষ্টি দৈনিক সবচেয়ে বেশী গড়ে ২ ঘন্টা ৫৩ মিনিট এবং ৫৫-৬৪ বছরের জনগোষ্টি সবচেয়ে কম ১ ঘন্টা ২০ মিনিট সোস্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে। প্রণিধানযোগ্য তথ্য হল সব বয়স-ভিত্তিক গ্রুপের ক্ষেত্রে মহিলারা পুরুষদের চেয়ে বেশী সময় সোস্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে। বাংলাদেশের সোস্যাল মিডিয়া বিশেষ করে ফেস-বুকের খাবার দাবার, পোষাক-গহনা কিংবা স্বাস্থ্য-বিষয়ক ওয়েব-পেজগুলোর অধিকাংশ ভিজিটরগণই মহিলা।

অত্যধিক জনপ্রিয়তার কারণে ফেস-বুক বর্তমানে সোস্যাল-মিডিয়ার সমার্থক হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। মার্ক জুকারবার্গ এবং তার হার্ভার্ড কলেজ সহপাঠিদের হাত ধরে ২০০৪ সনে “ফেস-মাশ” নামে জন্ম লাভ করা “ফেস-বুক” আজ সোস্যাল মিডিয়া সাম্রাজ্যে অধিশ্বরের আসনে আসীন। ২০২০ সনের জুলাই মাসের তথ্যাদির ভিত্তিতে Statista এর পরিসংখ্যাণ অনুযায়ী বিশ্বের সর্বাধিক ফেসবুক ব্যবহারকারী দেশের তালিকায় ২৯০ মিলিয়ন ব্যবহারকারীর দেশ ভারত প্রথম অবস্থানে এবং ৩৮ মিলিয়ন ব্যবহারকারীর দেশ বাংলাদেশ দশম অবস্থানে রয়েছে। Global Stats এর সেপ্টেম্বর-২০২০ মাসের প্রতিবেদন থেকে জানা যায় বাংলাদেশে সোস্যাল মিডিয়ার মধ্যে ফেস-বুকের একচ্ছত্র প্রভাব রয়েছে, যা মোট সোস্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীর ৯৫.২৮% নিয়ে শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে, ২.৫৪% নিয়ে ইউ-টিউব দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে।

ইতিহাস থেকে সুষ্পষ্ট ধারণা মেলে যে মানব সভ্যতার ইতিহাসে তথ্য-প্রযুক্তি তথা ডিজিটাল প্রযুক্তি যত দ্রুত বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয়তা এবং বিস্তার লাভ করেছে আর কোন প্রযুক্তির ক্ষেত্রে তেমনটি লক্ষ্যনীয় নয়। ডিজিটাল প্রযুক্তির ফসল সোস্যাল মিডিয়ার ক্ষেত্রেও তেমন অভাবনীয় গতির বিস্তার লক্ষ্য করা যায়। লিংগ, বর্ণ, বয়স-নির্বিশেষে সোস্যাল-মিডিয়ার জোয়ারে ভাসার গূঢ় রহস্য এখনো জনসমক্ষে পরিষ্কার নয়।

সোস্যাল মিডিয়া কেন মানুষকে আকর্ষণ করে অথবা মানুষ তার কি প্রয়োজন মেটাতে সোস্যাল মিডিয়ার দ্বারস্ত হয় তা নিয়ে বিস্তর গবেষণা হয়েছে। কুয়েত ইউনিভার্সিটির  প্রফেসর Jamal J. Al-Menayes তাঁর “Motivations for Using Social Media: An Exploratory Factor Analysis” গবেষণা প্রবন্ধে ৫টি মোটিভেশনাল ফ্যাক্টর চিহ্নিত করেছেন- বিনোদন, ব্যাক্তিগত প্রয়োজন, তথ্য-সন্ধান, সুবিধা এবং পরোপকারী ভাবনা।

স্পেনের Alcala বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর Ghassan H Felemban এবং Miguel-Angel Sicilia তাদের “Motivations and Incentives in Joining and Using Social Networks : A Systematic Review” প্রবন্ধে সোস্যাল মিডিয়ার ১২ টি মোটিভেশনাল ফ্যাক্টরের উল্লেখ করেছেন- (১) নতুন সম্পর্ক স্থাপন (২) বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ (৩)সামাজিকতা (৪)তথ্য অনুসন্ধান (৫) বিতর্ক (৬) ফ্রি এসএমএস (৭) সময় কাটানো (৮) কন্টেন্ট শেয়ার করা বা দেখা (৯) মজা করা (১০) অন্যের প্রোফাইল ভিজিট (১১) পারিবারিক যোগাযোগ এবং (১২) অন্যান্য।   নরওয়ের বিখ্যাত গবেষণা প্রতিষ্ঠান SINTEF এর  গবেষক Petter Bae Brandtzæg এবং Jan Heim তাদের গবেষণামূলক “ Why People Use Social Networking Sites” প্রবন্ধেও অনুরুপ ১২ টি মোটিভেশনাল ফ্যাক্টর সনাক্ত করেছেন। তাদের গবেষণার ফলাফলে আরো প্রতীয়মান হয়েছে সর্বাধিক ৩১% ব্যবহারকারী নতুন সম্পর্ক স্থাপন, দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২১% ব্যবহারকারী বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা এবং তৃতীয় সর্বোচ্চ ১৪% ব্যবহারকারী সামাজিকতার জন্য সোস্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে থাকে। এক্ষেত্রে সোস্যাল মিডিয়া ব্যবহারের  মাধ্যমে যোগাযোগ স্থাপনের বিষয়টি মুখ্য হিসাবে প্রতিফলিত হয়।

বাফার ব্লগের ডিরেক্টর Courtney Seiter তার “The Secret Psychology of Facebook:Why We Like, Share, Comment andKeep Coming Back” প্রবন্ধে ব্যবহারকারীগণ ফেস-বুকে কেন আঠাঁর মতো লেগে থাকে তার বৈজ্ঞানিক ও মনোস্তাত্ত্বিক কারণ বিশ্লেষণ করেছেন।

ফেস-বুক ব্যবহারকারীগণ কোন পোস্টে কেন ‘লাইক’ দেন? সাধারণত কোন বন্ধু বা পরিচিতজনের চিন্তা-চেতনার প্রতি একাত্মতা বা সংহতি প্রকাশের জন্য, ভার্চ্যুয়ালি সহানুভূতি প্রকাশের জন্য। কোন ব্যবসা বা কোম্পানির পোস্টে ‘লাইক’ দেয়ার ক্ষেত্রে ভিন্নতর কারণ নিহিত থাকে, বিনিময়ে ‘ফ্রি কুপন’ কিংবা নিয়মিত ‘আপ-ডেট’ প্রাপ্তির প্রত্যাশা থাকে। তবে সকল ক্ষেত্রেই ‘লাইক’ প্রদানকারী নিজের অজান্তে তার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের ছাপ  উন্মোচিত করে থাকেন, যা পোস্টের ‘মেসেজ’ বা ‘গুণগত মানের’ ভিত্তিতে নির্ধারিত হয়।

ফেস-বুক ব্যবহারকারীগণ কোন পোস্টে কেন ‘কমেন্ট’ করেন?  মনোস্তাত্ত্বিক বিচারে ‘কমেন্ট’ হল অত্যন্ত শক্তিশালী ‘emotional driver’ যা পোস্ট প্রদানকারী এবং কমেন্ট প্রদানকারীর মধ্যে সুদৃঢ় বন্ধন সৃষ্টি করে যোগাযোগ অব্যাহত রাখতে সহায়তা করে।

ফেস-বুকে ‘পোস্ট’  কেন “শেয়ার” করা হয়? The New York Times এর শেয়ারিং এর মনোস্তাত্ত্বিক কারণ অনুসন্ধানীমূলক এক সমীক্ষা থেকে জানা যায় সবচেয়ে বেশী সংখ্যাক অর্থাৎ ৮৪% শেয়ার করে কোন একটা সত্য বা মতামতকে সমর্থন করার জন্য, ৭৮% সম্পর্ক স্থাপন/উন্নয়ন, ৬৯% আত্মতুষ্টির জন্য, ৬৮% নিজেকে প্রকাশ করার জন্য এবং ৪৯% নিছক বিনোদনের জন্য।

ফেস-বুক ব্যবহারের ধরণ দেখে অর্থাৎ ‘লাইক’, ‘কমেন্ট’ কিংবা “পোস্ট শেয়ারিং” থেকে ব্যবহারকারীর চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে সম্যক ধারণা লাভ করা সম্ভব।

বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক সমাজের একজন হিসাবে সামাজিক অনুষ্ঠানাদিতে যোগদান করতে পারেন। কিন্তু পোস্ট শেয়ারিং এর ক্ষেত্রে সামাজিক অনুষ্ঠানের ছবি নাকি জাতীয় বা আন্তর্জাতিক কোন সভা/সেমিনারে অংশগ্রহণের ছবি কোনটা তার ফেস-বুক ফ্রেন্ড বা ফলোয়ারদের যথাযথ মেসেজ দিবে, তার মর্যাদা এবং অবস্থান সঠিক মূল্যায়ণে সহায়ক হবে? একজন সরকারী কর্মকর্তা সরকারী কাজে বরিশাল কিংবা সিলেটে যাওয়ার সময় বিমানের সিড়িঁতে পা ঠেকিয়ে ছবি তুলে তা ফেস-বুকে পোস্ট করলে তা কি কোন গুরুত্বপূর্ণ মেসেজ দেয়? একজন শিক্ষিকা প্রতিদিন  স্কুলে প্রবেশের কিংবা প্রস্থানের ছবি ফেস-বুকে পোস্ট করলে তা ফেস-বুক ফ্রেন্ডদের জন্য কি তথ্য/মেসেজ দেয়। প্রতিদিন নিজ বাসার ছাদে বসে সূর্যাস্ত দেখা হয়তো নিজের শারিরীক ও মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য হিতকর কিন্তু তা ফেসবুক ফ্রেন্ডের জন্য কতটা স্বাস্থ্যকর? বাংগালী হিসাবে রিক্সা চড়া কিংবা নিজের হাতে বাজার করা কোনটাই কি চমকিত হওয়ার মত ঘটনা? রিক্সায় বসে ছবি কিংবা বাজারের থলে হাতে কাচাঁবাজারের ছবি কিংবা পৌঢ় দম্পতির চোখে-চোখ রেখে ‘দুজনে-দুজনার” জাতীয় ছবি গুলি সামগ্রিকভাবে ফেস-বুকের তথ্য-ভান্ডারকে অহেতুক স্থুল করা এবং ফেস-বুকের প্রয়োজনীয় ব্যবহারের সুযোগ সীমিতকরণ ছাড়া  ফ্রেন্ড বা ফলোয়ারদের কোন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য/মেসেজ দিতে সক্ষম হয় কি?  এ প্রসংগে Pew Research Center এর ফেস-বুক অপছন্দের কারণ অনুসন্ধানীমূলক Internet Project Survey, 2013 ফলাফল পর্যালোচনা করা যেতে পারে। ফেস-বুকে নিজের সম্পর্কে অত্যাধিক প্রচারণাকে ৩৬% এবং নিজের  সম্পর্কে অত্যাধিক প্রচারণার মানসিকতা থাকাকে ২৪% ফেস-বুক ব্যবহারকারী “Strongly dislike” করে। আমরা ফেস-বুকে আঠাঁর মত লেগে থেকে নিজেদের অকাতর প্রচারণার মিশন বাস্তবায়ণের ক্ষেত্রে কখনো কি ফ্রেন্ড বা ফলোয়ারদের অমানুষিক নির্বাক যন্ত্রনায় কুকঁড়ে উঠা মুখের প্রতিচ্ছবিটি মনে রাখি?

Licensed clinical social worker Frances Dalomba তার “Social Media: The Good, The Bad, and The Ugly” প্রবন্ধে সোস্যাল মিডিয়ার খারাপ দিক সম্পর্কে উল্লেখ করেছেন, সোস্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীগণ প্রায়শই অন-লাইন জগত আর বাস্তবকে একাকার করে ফেলে যা সমীচীন নয়। সোস্যাল মিডিয়ার বন্ধু প্রকৃত বন্ধু নাও হতে পারে, অনেক সময় অপরিচিত জন, এক্ষেত্রে অধিক আস্থা স্থাপনে ঝুঁকির সম্ভাবনাও থাকে। ব্যবহারের ক্ষেত্রে পরিমিতিবোধের অভাব ঘটে, যা বয়স বা লিংগের সীমাবদ্ধতা অতিক্রম করে অপ্রত্যাশিত ফলাফল বয়ে আনে। সোস্যাল-মিডিয়া আসক্তি দেখা দিলে তা ব্যাক্তি, পরিবার এমনকি সামাজিক জীবনে বিপর্যয় ঢেকে আনতে পারে। অনেক ক্ষেত্রে সোস্যাল মিডিয়ায় ইমেজ-সৃষ্টির অসুস্থ্য প্রতিযোগিতা দেখা যায়, যা ব্যবহারকারীদেরকে বেপরোয়া করে তুলে। কুৎসিত আচরণের মধ্যে অন্যতম “Cyberbullying”, যা সামাজিক অবক্ষয়ের চরমতর বহিঃপ্রকাশ, যার কুপ্রভাব সাম্প্রতিক কালে বাংলাদেশেও পরিলক্ষিত হয়েছে ।

আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপট বিবেচনায় ৩৮ মিলিয়ন ফেস-বুক ব্যবহারকারী নিয়ে বিশ্ব মানচিত্রে দশম স্থানে অবস্থান বাংলাদেশে সোস্যাল-মিডিয়া তথা ফেস-বুকের জোয়ারের সুষ্পষ্ট প্রতিফলন। কিন্তু ব্যবহারের গুণগত মানের চিত্র মোটেও আত্মতুষ্টিদায়ক নয়। আমাদের আত্মপোলব্দি এবং আত্মসমালোচনা প্রয়োজন। ডিজিটাল জমানার আশির্বাদ ফেস-বুকের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে  তার যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করা প্রয়োজন। ফেস-বুক ব্যবহার করে পরিবেশ রক্ষা, দারিদ্র দূরীকরণ, দূর্নীতির বিরুদ্ধাচারণ, দূর্যোগ মোকাবেলায় সহায়তা, নারী-নির্যাতনের প্রতিবাদ, নতুন ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ব্যবসার নব-নব দ্বার উন্মোচন, সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টিসহ ব্যাক্তিগত, পারিবারিক ও সামাজিক উন্নয়ণমূলক বিভিন্ন কর্মকান্ডে অংশগ্রহণ করা সম্ভব। বিশ্বব্যাপী তরুণ সমাজের কাছে ফেস-বুক অত্যন্ত আকর্ষণীয়, এর সঠিক ব্যবহারের মাধ্যমে তরুণ-সমাজকে সঠিক দিক নির্দেশনা প্রদানের অপার সুযোগ রয়েছে। আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে- সোস্যাল মিডিয়ার জোয়ারে আমরা কি ভাসতে ভাসতে এগিয়ে যাব, নাকি এর আবর্তে অতলে তলিয়ে যাবো?

লেখক: সৈয়দ এমদাদুল হক, বাংলাদেশের ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়াধীন ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের একজন যুগ্ম-সচিব। মেইল: -slzf07@gmail.com

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন